“ইয়ামাহা রাইডিং ফিয়েস্তা”-এর এ টু জেড (পুরো ইভেন্টের যাবতীয় আপডেট)

Tourino Tyres

যখন থেকে এসিআই মোটরস লিমিটেড বাংলাদেশে ইয়ামাহার মোটরসাইকেল ইম্পোর্ট করতে শুরু করে, ঠিক তখন থেকেই নতুন আঙ্গিকে ইয়ামাহাকে বাংলাদেশে রিপ্রেজেন্ট করতে কোম্পানীটি নানা ধরনের কার্যক্রাম করে আসছে। মাত্র এক বছরে ৩টি বৃহৎ পরিসরের ইভেন্ট করেছে তারা। ঢাকা বাইক কার্নিভাল, ইয়ামাহা প্রেজেন্টস – স্বাধীনতার শপথ এবং এরপর ইয়ামাহা রাইডিং ফিয়েস্তা। শুধু মোটরসাইকেল বিক্রির মধ্যে সীমাবদ্ধ না থেকে বরং মোটরসাইকেলিস্টদের জন্য এবং মোটরসাইকেলিস্টদের নিয়ে নিজেদের ব্রান্ডকে প্রসারিত করার জন্য কাজ করে যাচ্ছে তারা।

তিন দিন ব্যাপী ইন্টারন্যশনাল কনভেনশন সিটি বসুন্ধরাতে আয়োজিত হল এই “ইয়ামাহা রাইডিং ফিয়েস্তা”। এই প্রোগ্রাম নামকরণে “রাইডিং ফিয়েস্তা” যুক্ত করার কারণ হচ্ছে এই ইভেন্টের মূল অংশ ছিল ইয়ামাহার বাইক টেস্ট রাইড এবং জিমখানা রাইডিং। গত ২৬ শে মার্চ যারা গীনিজ ওয়ার্ল্ড রেকর্ডে অংশগ্রহণ করেছিল তাদের মাঝে পার্টিসিপেশন সার্টিফিকেট প্রদান করাও ছিল এই ইভেন্টের অন্যতম উদ্দ্যেশ্য। এছাড়াও ছিল ইয়ামাহার মোটরসাইকেলের ডিসপ্লে, বাইকার ক্যাফে, ইয়ামাহা রাইডিং ক্লাব, বাইক বিডি এবং দেশি-বাইকার ডট কমের স্টল।

প্রতিদিন সকাল ১১ টা থেকে রাত ৮ টা পর্যন্ত গীনিজ ওয়ার্ল্ড রেকর্ডে অংশগ্রহণকারীরা তাদের সার্টিফিকেট গ্রহণ করে। সার্টিফিকেট সংগ্রহের পাশাপাশি তাদের গীনিজ লোগো সম্বলিত টি-শার্ট এবং ফুড কুপন প্রদান করা হয়। সার্টিফিকেট গ্রহণের স্টলের পাশেই ছিল ফটোবুথ। যারা ফটোবুথে সেলফি উঠেয়ে নিজের প্রোফাইলে “Yamaha Motorcycles Bangladesh” পেজ চেক-ইন করে ফটো শেয়ার করেছে তাদের মধ্য থেকে ২০ জনকে ACI Motors-এর পক্ষ থেকে গিফট বক্স দেয়া হবে বলে জানা গেছে।

টেস্ট রাইড, জীমখানা এবং কালচারাল প্রোগ্রামগুলো চলেছে বিকেল ৪ টা থেকে রাত ৮ টা পর্যন্ত। প্রতিদিন সকাল ১১টা থেকে বিকেল ৪ টা পর্যন্ত বাংলাদেশ পুলিশকে রাইডিং ট্রেনিং প্রদান করে জাপান থেকে আগত ইয়ামাহা রাইডিং একাডেমীর ইন্সট্রাক্টররা। মূলত তারা বিশ্বব্যাপী সেফ রাইডিং প্রোমোট করে। আমরা বাইকাররা হয়তো অনেক বছর যাবৎ মোটরসাইকেল চালিয়ে আসছি কিন্তু বেশির ভাগই জানি না সঠিক রাইডিং টেকনিক। কিভাবে পারফেক্ট কর্ণারিং করতে হয়, ইঞ্জিন ব্রেক, ক্লাচ ছাড়া কিভাবে ব্রেকিংয়ের মাধ্যমে মাধ্যমে একটা বাইককে সবচেয়ে কম জায়গার মধ্যে স্টপ করা যাবে ইত্যাদি নানা বিষয়ে প্রশিক্ষণ দিয়েছে তারা। আমাদের দেশের প্রেক্ষাপটে এ জাতীয় রাইডিং টেকনিক সকল বাইকারদের রপ্ত করা উচিত বলে মনে করি। রাইডিং টেকনিক ছাড়াও সেফটি বিষয়ক পরামর্শ দিয়েছে তারা। প্রোপার সেফটি গিয়ার যেমন হেলমেট, রাইডিং স্যুট, গ্লাভস, নী-এলবো গার্ডের গুরুত্ব নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করেন জাপানীরা। এর আগেও বাংলাদেশ পুলিশদের ছাড়াও বিভিন্ন বাইকিং গ্রুপ মেম্বারদের মাঝে রাইডিং ট্রেনিং প্রদানের জন্য কাজ করেছে এসিআই মোটরস লিমিটেড।

টেস্ট রাইডের জন্য ছিল Yamaha R15 V3, FZs Double Disc, Yamaha Saluto, Yamaha Ray ZR (স্কুটার) এবং Yamaha XTZ (অফ-রোড বাইক) ইত্যাদি। টেস্ট রাইডের জন্য ছিল অনলাইন রেজিস্ট্রেশণ পদ্ধতি। এছাড়াও যে কেউ চাইলে ইভেন্টে এসে অন-স্পট রেজিস্ট্রেশন করে টেস্ট রাইড এবং জীমখানায় অংশগ্রহণ করেছে।

এই ইভেন্টের ভিন্ন ধর্মী আকর্ষন ছিল জিমখানা। জিমখানা মূলত এক ধরনের জিকজ্যাক রাইডিং যা অনেকটা ড্রাইভিং লাইসেন্সের ফিল্ড টেস্টের পরীক্ষার মত। যারা জিমখানা সাকসেসফুলী শেষ করেছে তাদের জন্য ছিল টি-শার্ট এবং সবচেয়ে কম সময়ে যারা জিমখানা রাইডিং শেষ করেছে তাদের মধ্য থেকে সেরা ৩ জন পেয়েছে রাইডিং স্যুট। সন্ধ্যার পর থেকে রকমারি আলোতে জিমখানা রাইডিং এবং টেস্ট রাইড ছিল দেখার মত। প্রতিদিন বিকেল থেকে রাত পর্যন্ত অনেক বাইকারের ভীড় ছিল এই প্রোগ্রামে।

ইয়ামাহা বাইকের ডিসপ্লেও ছিল এই ইয়ামাহা রাইডিং ফিয়েস্তাতে। এই ইভেন্টে যারা R15 V3 বুক করেছে তারা পেয়েছে উপহারস্বরূপ রাইডিং স্যুট এবং যারা FZs V2 Single Disc, Fazer V2, Saluto, SZ RR বুক করেছে তারা পেয়েছেন ইয়ামাহা হেলমেট।

প্রতিদিন সন্ধ্যায় ভীড় জমেছিল ঘোস্ট রাইডার ক্যাফেতে। সারা দিনের আপডেট সোশাল মিডিয়াতে লাইভে প্রচারণার জন্য কাজ করেছে দেশি-বাইকার ডট কম টিম। ইভেন্টের প্রথম দিনে উম্মোচন করা হয় দেশি-বাইকারের নতুন লোগো। লোগো উম্মোচনে উপস্থিত ছিলেন এসিআই এগ্রিবিজনেস ম্যানেজিং ডিরেক্টর এন্ড সিইও ডঃ এফ এইচ আনসারী, এসিআই মোটরসের এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর সুব্রত রঞ্জন দাশ, বিভিন্ন বাইকিং গ্রুপের এডমিন এবং মেম্বাররা।

প্রতিদিন ছিল কনসার্ট, ডিজে কিংবা ডান্স কিন্তু শেষ দিনে ছিল জমজমাট আয়োজন। নামকরা বিভিন্ন সংগীত শিল্পী, ডিজে এই প্রোগ্রামে পারর্ফম করে। এই প্রোগ্রামটি ছিল বাইকারদের জন্য একটি মিলনমেলা। বিভিন্ন মোটরসাইকেলিস্ট গ্রুপের মেম্বাররা সতঃস্ফূর্তভাবে এতে অংশগ্রহণ করে। সব মিলিয়ে একটি সফল ইভেন্ট বলতে হবে।

আমরা আশা করব এসিআই মোটরসের মত অন্যান্য মোটরসাইকেল কোম্পানীগুলোও বাইকারদের নিয়ে এমন ইভেন্ট আয়োজন করবে।

মন্তব্য

About The Author

Related Posts

error: Content is protected !!