ইয়ামাহা রাইডিং ফিয়েস্তা – ২০২১ এর আপডেট

ইয়ামাহা বরাবরই বাইকারদের নিয়ে বিভিন্ন গেট টুগেদার আয়োজন করে থাকে, এর মধ্যে অন্যতম বড় ইভেন্ট গুলো হচ্ছে ইয়ামাহা রাইডিং ফিয়েস্তা। করোনা প্রভাবের আগে তারা বেশ কিছু বড় ইভেন্ট আয়োজন করেছিলো যেমনঃ খুলনা রাইডিং ফিয়েস্তা, ঢাকা বাইক কার্ণিভাল এবং কক্সবাজার রাইডিং ফিয়েস্তা ছাড়াও প্রায়শই বাইকারদের নিয়ে এমন ইভেন্ট ও বিভিন্ন সামাজিক কর্মকান্ড করে থাকে। করোনা মহামারীর পর এমন ইভেন্ট আয়োজন করাটা সত্যি চ্যালেঞ্জের ছিল। সেই সব কিছু ভেবেই আবারো বরিশাল রাইডিং ফিয়েস্তা ২০২১ দিয়ে তাদের কার্যক্রম শুরু করলো ইয়ামাহা, আয়োজনে ছিল YRC.

বরিশাল রাইডিং ফিয়েস্তা অনুষ্ঠিত হয় ১২ই মার্চ, ২০২১ বরিশাল শহরের বেলস পার্কে, বর্তমানে যেটি বঙ্গবন্ধু পার্ক নামে পরিচিত। এই ইভেন্টে অংশগ্রহন করতে বরিশাল বিভাগের আশেপাশের জেলা গুলো সহ এর বাইরেও অনেক জেলা থেকে প্রায় ছয় শতাধিক এর মতো বাইকার এসে একত্রিত হয়। এই প্রোগ্রামের মিডিয়া পার্টনার হিসেবে থাকে দেশি বাইকার। অনুষ্ঠানের মূল আয়োজক ইয়ামাহা রাইডার্স ক্লাব এবং সহযোগিতায় থাকে ACI Motors Ltd. দেখে নেয়া যাক পুরো ইভেন্ট জুড়ে কি কি আয়োজন ছিলো বাইকারদের জন্য।

সকাল থেকেই বাইকাররা ইভেন্টের মাঠে এসে একত্রিত হয়। এখানে বাইকারদের জন্য টেস্ট রাইডের ব্যবস্থা করা হয়, যেখানে টেস্ট রাইডের জন্য ছিলো MT 15, FZS V3 এবং ইয়ামাহার সদ্য নিয়ে আসা ক্যাফে রেসার XSR-155. এখানে বাইকাররা তাদের পছন্দের বাইক টেস্ট রাইড করে তাদের মতামত জানিয়েছে। আসলে এরকম টেস্ট রাইড এর সুযোগ গুলো আরো বেশি বেশি দেয়া উচিৎ বাইকারদের জন্য বলে আমরা মনে করি। এছাড়া টেস্ট রাইডের পাশাপাশি ছিলো জিমখানা রাইড, এটি মূলত জিগজ্যাগ বলা হয়ে থাকে যেখানে বাইকাররা তাদের স্কিল টেস্ট করার সুযোগ পায়। এসবে ভাল ভাবে রাইড করতে পারার জন্য ইয়ামাহার পক্ষ থেকে ছিলো উপহার।

বরিশাল রাইডিং ফিয়েস্তায় উপস্থিত ছিলেন বরিশাল সিটি মেয়র জনাব সেরনিয়াবাত সাদিক আবদ্দুলাহ, তিনি নিজের বাইকে করে ইভেন্টে এসে অংশগ্রহন করেন এবং বাইকারদের বাইক রাইড সম্পর্কে আরো উৎসাহ প্রদান করেন। তিনি তার বাইকিং লাইফের গল্প শেয়ার করেন সকলের সাথে। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন জনাব সুব্রত রঞ্জন দাস (এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর – ACI Motors), এছাড়া ইয়ামাহার কর্মকর্তাগণ এবং YRC এর মেম্বাররাও উপস্থিত ছিলেন।

সারাদিনের বিভিন্ন কার্যক্রম শেষে সন্ধ্যায় ফায়ার ওয়ার্ক, ডিজে শো এবং কন্সার্ট। কন্সার্টে ইয়ামাহার নিজস্ব ব্যান্ড এর পাশাপাশি ছিলেন সঙ্গীত শিল্পী কর্নিয়া। এই অনুষ্ঠানে অন্যতম আকর্ষণ ছিলো বাইকারদের জন্য Yamaha R1M বাইকটি নিয়ে। এই হাজার সিসির বাইকটি বাইকারদের জন্য উম্মক্ত করে দেয়া হয় দেখার জন্য। বাইকাররা এই বাইকের সাথে ছবি তোলার সুযোগ পায়। বাইকটি বরিশালের মাটিতে দেখতে পেরে বাইকাররা অনেক খুশি হয় এবং তারা আফসোস করে দেশের সিসি সীমাবদ্ধতা নিয়ে।

যেহেতু আমরা টিম দেশি বাইকার প্রোগ্রামের মিডিয়া পার্টনার হিসেবে ছিলাম সেহেতু সারাদিন আমরা এই ইভেন্টে ছিলাম এবং আমাদেরও কিছু মজার এক্টিভিটি নিয়ে। আমরা একটা ফুটবল গেমের আয়োজন করি, যেখানে গোল বারে বল এক বারে ঢুকাতে পারলেই উপহার হিসেবে ছিলো দেশি বাইকারের পক্ষ থেকে ইয়ামালুব এর সেমি সিন্থেটিক একটি ইঞ্জিন অয়েল। এই গেমে বেশ ভাল সাড়া পাই আমরা বাইকাররা বেশ উপভোগ করে গেমটি। গেমে মোট অংশগ্রহন করে ৩৭৯ জন যার মধ্যে থেকে ২৫ জন ইয়ামালুব এর ইঞ্জিন অয়েল এবং দেশি বাইকারের টি-শার্ট জিতে নেন। এছাড়া সকলের জন্য ছিলো দেশি বাইকারের স্টিকার।

ইয়ামাহা বাইকারদের নিয়ে সবসময় এধরনের ইভেন্ট আয়োজন করে আসছে এবং করোনাকালীন সময়ের পরে এটি বাইকারদের নিয়ে সবচেয়ে বড় ইভেন্ট। এধরনের ইভেন্টগুলো বাইকাররা বেশ উপভোগ করে এবং তারা চায় এধরনের ইভেন্ট আরো বেশি বেশি হোক প্রতিটা শহরে, যাতে করে সব জেলার বাইকাররা এধরনের উপভোগের সুযোগ পায়।

Related Posts