Dhaka Bike Show 2019 (Moto Blog Partner - DeshiBiker.com)
Honda CB Hornet 160R টেস্ট রাইড রিভিউ - দেশি বাইকার

Honda CB Hornet 160R টেস্ট রাইড রিভিউ

Tourino Tyres

নতুন বছরে Honda CB Hornet 160R এর দাম আরো কমিয়ে আনল বাংলাদেশ হোন্ডা প্রাইভেট লিমিটেড। বর্তমানে বাজারে এর মূল্য ১৮৯,৮০০ টাকা মাত্র। এর প্রতিদ্বন্দ্বী বাইকগুলোর তুলনায় এর দাম এখন সবচেয়ে কম। কিছুদিন আগে মুন্সিগঞ্জে নিজেদের উৎপাদনকেন্দ্র চালু করেছে হোন্ডা এবং তাই আমরা আশা করছি এই বছরের মাঝামাঝি আরো কিছু বাইকের দাম কমিয়ে আনতে সক্ষম হবে কোম্পানীটি।

গত বছর বাংলাদেশে সিসি লিমিট যখন ১৫০ থেকে ১৬৫ তে উত্তীর্ন হয় তখন সবাই খুঁজছিলো এই লিমিটের মাঝেই নতুন কি কি মডেলের বাইক পাওয়া যাবে। হোক যতই সিসি লিমিট সামান্য বাড়ানো হয়েছে। কিন্তু নতুন কিছু মানেই বাড়তি আনন্দ। ঠিক সেই সময় মোটরসাইকেলিস্টদের আগ্রহের কেন্দ্রবিন্দু ছিল এই Honda CB Hornet 160R. কারণ ছিল এর অসাধারণ লুকস, এক্স শেপড অসাধারণ এলইডি টেইললাইট, ডিজিটাল স্পিডোমিটার, ব্রেকিংয়ে অসাধারণ সব ফিচার ইত্যাদি।

ভারতে Honda CB Hornet 160R এর কয়েকটি ভার্সন রয়েছে। যেগুলো হচ্ছে ডাবল ডিস্ক সাথে সিবিএস , ডাবল ডিস্ক সাথে এবিএস এবং স্ট্যান্ডার্ড ইডিশন। বাংলাদেশ হোন্ডা প্রাইভেট লিমিটেড বাংলাদেশে লঞ্চ করে স্ট্যান্ডার্ড ইডিশনটি যাতে পাবেন সিঙ্গেল ডিস্ক ব্রেক এবং কোন CBS কিংবা ABS ব্রেকিং সিস্টেম নেই। ব্রেকিংয়ে যেই প্রত্যাশা ছিল, তাই কি পাওয়া যাবে এই বাইকটিতে? এর উত্তর পেতে এবং বাইকটি আসলে সব মিলিয়ে কেমন তা আজ আপনাদের সামনে তুলে ধরব।

১৬২.৭১ সিসি’র এই ফোর স্ট্রোক, এসআই, এয়ারকুল্ড ইঞ্জিনটি ১৫.১ বিএইচপি ম্যাক্সিমাম পাওয়ার এবং ১৪.৫ Nm টর্ক উৎপন্ন করতে পারে। ০ – ১০০ কিঃমিঃ/ঘন্টা স্পিড গেইন করতে সময় লাগে ১৭ সেকেন্ড। ইনিশিয়াল এক্সিলারেশন আরো কিছুটা ভাল হতে পারত। তবে যা আছে তা নিয়ে আমরা মোটামুটি সন্তুষ্ট।

ফুয়েল ট্যাংকটি বেশ মাস্কুলার যা ১২ লিটার ফুয়েল ধারণ করতে পারে। রয়েছে ফাইভ স্পিড গিয়ার বক্স এবং বাইকটির ওজন ১৩৮ কেজি।

বাইকটিতে রয়েছে Viscous এয়ার ফিল্টার, যা ইঞ্জিনে প্রপার এয়ার ফ্লো পেতে সহায়তা করে। সিটি এবং হাইওয়ে মিলে আমরা এর মাইলেজ পেয়েছি ৪২ কি:মি:/লিটার। একটি ন্যাকেট স্পোর্টস ১৬০ সিসি বাইক হিসেবে এর মাইলেজ যথেষ্ট।

৬৫০০ আরপিএম পর্যন্ত বাইকটি স্মুথলি রান করে কিন্তু হাই আরপিএমে মোটামুটি ভাইব্রেশন বোঝা যায়। হর্নেটের সিটিং পজিশন আমাদের বেশ ভালো লেগেছে, যেন মনে হয় সত্যি কোন ন্যাকেট স্পোর্টস বাইক চালাচ্ছি। বাইকটির পাওয়ার ডেলিভারি অসাধারণ। হিল রাইডের সময় এর আসল রূপ বোঝা যায়।

Hornet headlight

তবে বিল্ট ইন কোয়ালিটি নিয়ে অনেকে অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন। পেইন্ট কোয়ালিটি, প্লাস্টিক প্রোডাক্ট এবং আরো কিছু টুকিটাকি জিনিসের দীর্ঘস্থায়ীতা আমাদের কাছেও কম মনে হয়েছে।

এর চেসিসে ব্যবহার করা হয়েছে ডায়মন ফ্রেম। রয়েছে মিডশিপ স্পোর্টি একজোস্ট ইউনিট। সামনে টেলিস্কোপিক এবং পেছনে মনোশক সাসপেনশন রয়েছে। ফ্রন্ট সাস্পেনশনটি চমৎকার কাজ করে কিন্তু রেয়ার সাস্পেনশনটি কিছুটা হার্ড মনে হয়েছে। তবে এটি ব্রেক ইন পিরিয়ডের পর কিছুটা ভাল ফীডব্যাক দিতে শুরু করে। আর আপনি চাইলে রেয়ার সাসপেনশনটি এডজাস্ট করে নিতে পারবেন।

বাইকটিতে আমরা টপস্পিড পেয়েছি ১২২ কি:মি:/ঘন্টা। এর সামনে ১০০/৮০ এবং পেছনে ১৪০/৭০ সেকশন টায়ার ব্যবহার করা হয়েছে। হাইস্পিড কর্নারিংয়ে এর ফিডব্যাক এবং ফিল চমৎকার।

ড্যাশবোর্ডটি সম্পূর্ণ ডিজিটাল, যাতে প্রয়োজনীয় সব ফিচার পাবেন। তবে এর হ্যান্ডেলবারে কোন কিল সুইচ নেই। জানি না কেন! কিল সুইচ থাকলে রাইডারদের কিছুটা উপকার হত। বাইকটিতে সেলফ এবং কিক স্টার্টার রয়েছে।

হর্নেটে AHO সিস্টেমটি রয়েছে। হেডলাইট হ্যালোজেন, নাইট রাইডে এর আলো নিয়ে আপনারা সন্তুষ্ট নাও হতে পারেন। তবে ব্যাক লাইটটি এলইডি এক্স শেপ এবং অসাধারণ। এক বাক্যে এই সময়ের যে কোনো বাইকের মধ্যে সেরা বলতে হবে এর টেইল লাইটটিকে।

এবার আসি এর ব্রেকিংয়ে। এর সামনে ২৭৬ মিঃমিঃ এর একটি পেটাল ডিস্ক ব্রেক ব্যবহার করা হয়েছে। সাথে থাকছে সিঙ্গেল পট নিশিন ক্যালিপার যেখানে ইন্ডিয়ায় হর্নেটে ট্রিপল পট ক্যালিপার দেখা যায়। পেছনে ব্যবহার করা হয়েছে ১৩০ মি:মি: এর একটি ড্রাম ব্রেক। টপস্পিড, এক্সিলারেশন, ব্রেকিং, ব্যালেন্স এই এক একটি বিষয়ের উপর এক একজন বাইকার বাড়তি গুরুত্ব দিয়ে থাকে। আমার কাছে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ এই বাইকের ব্রেকিং। আর শুধুমাত্র Honda CB Hornet 160R এর অসাধারণ ব্রেকিংয়ের কারণে বাইকটির প্রতি বেশ সফট কর্নার কাজ করে।

আমাদের কাছে এই সেগমেন্টের সেরা ব্রেকিং মনে হয়েছে Hornet 160R এর। সিঙ্গেল ডিস্ক ব্রেক হলেও ১৪০ সেকশন টায়ার, টায়ারের প্রপার গ্রিপ, ব্যালেন্সের সেন্ট্রালাইজেশন, ড্রাম ব্রেকের প্রপার ফিডব্যাক এবং সিটিং পজিশনের কারণে এর ব্রেকিং যেন মনের মত।

আমরা চাইব বাংলাদেশ হোন্ডা প্রাইভেট লিমিটেড হর্নেটের ডাবল ডিস্ক ব্রেক এবং সিবিএস, এবিএস ভার্সনগুলোও বাংলাদেশে লঞ্চ করুক। কারণ আমাদের দেশের মত রাস্তা ঘাটে ব্রেকিং খুব গুরুত্বপূর্ণ। সেক্ষেত্রে বাইকে এবিএস থাকলে অনেক বড় দূর্ঘটনা থেকেও হয়তো একজন বাইকার রেহাই পেতে পারেন।

কোন বাইকে সব কিছু মনের মত হয় না। যে বাইকটি আপনার চাহিদাকে বেশি ফুল ফিল করবে সেই বাইকটিই আপনার পছন্দের তালিকায় সবার উপরে রাখা উচিত।

ভাল থাকবেন। আর হেলমেট ছাড়া কখনো বাইক চালাবেন না।

~ লিভ ফ্রী, রাইড সেইফ /.

 

লিখেছেনঃ দেওয়ান সোহান

মন্তব্য

About The Author

Related Posts

error: Content is protected !!