TVS Auto Bangladesh
Yamaha FZS V3 মালিকানা রিভিউ ( লিখেছেন - আহসান শিশির) - দেশি বাইকার

Yamaha FZS V3 মালিকানা রিভিউ ( লিখেছেন – আহসান শিশির)

প্রিয় বাইক FZS V3 রিভিউ:

বাংলাদেশে লঞ্চ হওয়ার পর থেকেই অন্যতম জনপ্রিয় একটি বাইক এটি, এর আগে FZS V2 দীর্ঘদিন বাজারে রাজত্ব করে এসেছে। আর এর পরে আসে ভার্সন ৩। এই বাইকটি নেয়ার মূল কারণ হলো এর কম্ফোর্ট, ব্রেকিং এবং এর মাইলেজ।

Yamaha FZS V3.0 নিয়ে বলতে গেলে সবার আগে বলতে হবে এর Anti Lock Braking System (ABS)নিয়ে। সিঙ্গেল চ্যানেল ABS এক কথায় অসাধারণ।আমাকে যেকোন পরিস্থিতে নিয়ন্ত্রণে রাখতে এটি অতুলনীয়। এছাড়া বাইকটি Dual Dick & single abs breaking, controlling সে জন্য অসাধারণ। বিশেষ করে ভেজা রাস্তায় এবিএস এর কার্যকরটা বেশ ভাল বুঝা যায়।

ফুয়েল ধারণ ক্ষমতা 12.800 ML হওয়ায় লং টুর নিয়ে বারবার ফুয়েলের চিন্তা করতে হয় না। এর আকর্ষনীয় দিক হচ্ছে চাবির Starting point. ফুয়েল ট্যাংকের কাছে চাবি থাকায় অসাধারণ লুকিং। বাইকটিতে এভারেজ 40-45 মাইলেজ পেয়েছি,তবে মাইলেজের ব্যাপারটা অনেকটা রাইডারের উপর নির্ভর করে থাকে। যেহেতু এটিতে EFI ইঞ্জিন ব্যবহার করা হয়েছে সেহেতু মাইলেজ ভাল হবে এটা স্বাভাবিক।

সামনে পিছনে টায়ারের সাইজ 100/80-17m এবং 140/60-17 হওয়ায় কর্ণারিং এ কোন সমস্যা হয় না। টায়ার মোটা হওয়ার কারণে এর ব্রেকিং এবং ব্যালেন্স যথেষ্ট ভাল হয়।

এটার রাইডিং এক্সপেরিয়ন্স এর কথা বলতে গেলে বলতে হবে এটি আসলেই কম্ফোর্ট কিং, সীটটি প্রশস্থ থাকায় আমার মা-বাবা কে নিয়ে স্বাচ্ছন্দে রাইড করতে পারি। এছাড়া একটানা রাইড করায়ও যাত্রা পথে আমাকে  আরামদায়ক ভাবে রাইড করতে সাহায্য করেছে। ফলে ব্যাক পেইন এর কোন সম্ভাবনা এই বাইকে নেই। বলা যায় এই বাইক ট্যুরের জন্য একদম পারফেক্ট রাইডার এবং পিলিয়ন দুজনের জন্যই।

এর টপ স্পীড পেয়েছি 125 আর 80-90 স্পীডেও বাইকটি সফল ভাবে নিয়ন্ত্রনে থাকে। তবে আগের ভার্সন টু এর চেয়ে কিছুটা রিফাইন স্মুথ ইঞ্জিন সাউন্ড পাবেন। তবে বরাবরের মত একটা অভিযোগ বাইক হিসেবে এক্সিলারেশনটা আরেকটু বেটার হলে অনেক ভাল হতো।

ভার্সন ৩ সিটি এবং হাইওয়ে উভয়ের জন্যই যথেষ্ট ভাল একটি চয়েস হবে। সিটিতে বেশ ভাল্ভাবেই রাইড করছিলাম আর টার্নিং রেডিয়াস খুব একটা খারাপ না জ্যামের মাঝে ভালভাবেই বের হয়ে যাওয়া যায়। আর ট্যুরের ক্ষেত্রে এটি ১০/১০ পাবে।

প্রতিটা জিনিসের কিছু ভাল খারাপ দিক রয়েছে, তেমনি এই বাইকের কিছু বিষয় আমার খারাপ লেগেছে, যেমন ১৫০ সিসি বাইক হিসেবে সব কিছু ঠিক থাকলেও এর এক্সিলারেশন অনেক কম মনে হয়েছে যা হাইওয়েতে গেলে বেশ ফিল করি, এর পর এই বাইকের হেড লাইটের আলো সিটি রাইডের জন্য ঠিক থাকলেও হাইওয়েতে এই লাইট দিয়ে চলা মুস্কিল।

সবশেষে বলবো বাংলাদেশে ইয়ামাহার অথরাইজড ডিস্ট্রিবিউটর ACI Motors কে নিয়ে, তাদের নিয়ে নতুন করে কিছু বলার নেই নাই, আমার মনে হয় তারাই বাইকারদের সুবিধা অসুবিধা গুলো খুব ভাল ভাবে দেখে এবং বাইকারদের নিয়ে বিভিন্ন সময় বিভিন্ন ইভেন্ট করে থাকি। তাদের সেলস আফটার সার্ভিস ও অন্যান্য সব কোম্পানীর থেকে ভাল মনে হয়েছে।

 

লিখেছেন – আহসান শিশির

মন্তব্য

About The Author

Related Posts

error: Content is protected !!
×