লুব্রিকেন্টস কেইস স্টাডি: পর্ব ০১

বাংলাদেশে প্রায় সকল প্রকার ইঞ্জিন অয়েলকে আমরা সাধারণত মবিল বলি। আসলে মবিল হচ্ছে একটি কোম্পানির নাম। গিয়ার অয়েল, পাওয়ার অয়েল (ATF) (CVTF), ডিফেন্সেল অয়েল/ রেয়ার অয়েল এর মত একটি অয়েল হচ্ছে ইঞ্জিন অয়েল। যা ইঞ্জিনের ভিতর ব্যবহার করা হয়। ইঞ্জিন অয়েল কে মবিল বলা এক প্রকার আমাদের অজ্ঞতা অথবা উক্ত কোম্পানি শক্তিশালী মার্কেটিং বলে মানতেই হবে। স্বাভাবিক ভাবে এদের বলা হয় লুব্রিকেন্টস। যেখানে বলতে গেলে শত শত প্রকার আইটেম আছে যার সবই লুব্রিকেন্টস এর অংশ।

আসল কথায় আসা যাক, ইঞ্জিন অয়েল কিন্তু সরাসরি কোন খনিজ পদার্থ নয়। বেশ কিছু প্রক্রিয়ার মাধ্যমে ইঞ্জিন অয়েল প্রস্তুত করা হয়। যার প্রথম অবস্থানকে বলে ক্রুড অয়েল। এই ক্রুড অয়েল থেকেই আসে অকটেন, পেট্রোল, কেরসিন, বিমান ফুয়েল, ডিজেল, লুব্রিকেটস বেইজ অয়েল, গ্রিজ ও বিটুমিন (যেটাকে আমরা পিচ বলি)। আরো অনেক কিছুই হয় ক্রুড অয়েল থেকে। ক্রুড অয়েল দেখতে অনেকটা কাঁদার মত। উচ্চ তাপে ক্রুড অয়েল থেকে এই আলাদা আলাদা পদার্থ গুলো বেড় করা হয়। লুব্রিকেটস বেইজ অয়েল থেকেই মূলত ইঞ্জিন অয়েল থেকে শুরু করে বড় গাড়িতে ব্যবহত সকল অয়েল প্রক্রিয়াজাত করে তৈরী করা হয়।

এখন এই বেইজ অয়েল আছে প্রায় ৬ প্রকার, এখন পর্যন্ত বাংলাদেশে ৫ প্রকার পাওয়া যায়। যখন ক্রুড অয়েল থেকে বেইজ অয়েল আলাদা করা হয় এবং আবার যখন এই বেইজ অয়েলকে আলাদা ৫ ভাগে ভাগ করা হয় তখন ভিন্ন ভিন্ন বেইজ অয়েলের সাথে বিভিন্ন প্রকার এডিটিভস এর সংমিশ্রন ঘটিয়ে ইঞ্জিন অয়েল থেকে শুরু করে বিভিন্ন প্রকার লুবিকেন্টস অয়েল তৈরী করা হয়। এডিটিভস হচ্ছে এক প্রকার কেমিক্যাল যা বেইজ অয়েলের সাথে মিশ্রন ঘটিয়ে বেইজ অয়েলের শক্তি বাড়িয়ে দেয়। অসংখ্য প্রকার এডিটিভস আছে পৃথিবীতে। গাড়ি ভেদে এবং গাড়ির ফাংশনের সাথে সমন্বয় করে ভিন্ন ভিন্ন এডিটিভস প্যাকেজ বানিয়ে ভিন্ন ভিন্ন রকমের ইঞ্জিন অয়েল তৈরী করা হয়, এর মানে দাড়ার গাড়ি আলাদা হলে বেইজ অয়েলের সাথে এডিটিভস প্যাকেজও আলাদা হবে। কারন এডিটিভসের কাজই হচ্ছে ভিন্ন ভিন্ন গাড়ি ভেদে ভিন্ন ভিন্ন পার্ফমেন্স দেয়া।

মূলত স্বভাবিক ভাবে ৮০% বেইজ অয়েলের সাথে ২০% এডিটিভস (গাড়ি ভেদে কম বেশি হয়) মিশিয়ে ইঞ্জিন অয়েল বা ভিন্ন ভিন্ন অয়েল তৈরী করা হয়। বেইজ অয়েলেও আছে তার নিজস্ব পার্ফমেন্স। বেইজ ওয়েল যত ভালো হবে স্বাভাবিক ভাবেই গাড়ি যদি ভাল থাকে তাহলে ইঞ্জিন অয়েলের পারফমেন্সও ভালো হবে। একটি গাড়ির ৯০% পার্ফমেন্স ডিপেন্ড করে তার ফিটনেসের উপর। তাই গাড়ির ফিটনেস যদি ভালো না হয় খুব স্বাভাবিক ভাবেই ইঞ্জিন অয়েল তার পার্ফমেন্স দিতে ব্যর্থ হবে।

লুব্রিকেন্টস নিয়ে আরো অনেক আলোচনা হবে সামনের দিন গুলোতে। এইসব হচ্ছে বেসিক বেপার। যা একজন ইউজার হিসেবে এইসব খুব বেশি জানার দরকার নেই। কিন্তু আমাদের দেশের অটোমোবাইল ডিপার্টমেন্টটি অনেক পিছিয়ে আছে অনান্য দেশের তুলনায়। আমাদের জানার সোর্সও অনেক কম। এর একটি বড় কারন আমাদের না আছে অটোমোবাইলের উৎপাদন সক্ষমতা না আছে বড় কোন দেশিও আন্তর্জাতিক মানের লুব্রিকেন্টস কোম্পানি। বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে প্রায় ৭৫% এর বেশি লুব্রিকেটস আইটেম আমদানি নির্ভর।

আজ এই পর্যন্তই, পরবর্তী টপিক নিয়ে শীঘই আসছি। সবাইকে ধন্যবাদ।

 

  • লুব্রিকেন্টস কেইস স্টাডি: পর্ব ০২ (আসিতেছে …)

 

লিখেছেনঃ ইমরান নাজির

মন্তব্য

About The Author

Related Posts

error: Content is protected !!