জনপ্রিয় হয়ে উঠছে পঞ্চগড়ের ডাহুক টি এস্টেট এন্ড কটেজ

বাংলাদেশের সর্বোত্তরের জেলা পঞ্চগড়। পঞ্চগড় জেলার উত্তরে ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের দার্জিলিং জেলা, উত্তর-পশ্চিমে জলপাইগুড়ি ও কোচবিহার জেলা, দক্ষিণে ঠাকুরগাঁও ও দিনাজপুর জেলা, পশ্চিমে ভারতের পশ্চিম দিনাজপুর ও পূর্ণিয়া জেলা এবং পূর্বে নীলফামারী জেলা অবস্থিত। প্রতি বছর অনেক মানুষ ভ্রমণের জন্য বেছে নেয় এই পঞ্চগড়কে। সমতল ভূমিতে চায়ের বাগান এবং বেশ কিছু দর্শনীয় স্থানের পাশাপাশি এই জেলার সর্বোত্তরের থানা তেঁতুলিয়া মানুষের কাছে অনেক বেশি পরিচিত। পর্যটকদের কেউই বাংলাবান্ধা জিরো পয়েন্টে অনন্তঃ একটি ছবি ফ্রেমবন্দী করতে কার্পণ্য করে না।

তবে সেই অনুযায়ী পর্যটন শিল্প এবং থাকার সুব্যবস্থা অনেকটাই কম। ইতোঃপূর্বে তেঁতুলিয়ার ডাক বাংলো এবং পঞ্চগড় সদরের কিছু হোটেলেই পর্যটকরা রাত্রীযাপন করত। তবে কিছু দিন হল সোশাল মিডিয়ায় বেশ সাড়া ফেলেছে পঞ্চগড়ের ডাহুক টি এস্টেট এন্ড কটেজ।

তেঁতুলিয়া থানার বুড়াবুড়ি ইউনিয়নে প্রায় ১০০ একর জমির উপর গড়ে ওঠা এই ডাহুক টি এস্টেট এন্ড কটেজ থাকছে নন এসি রুম এবং তাবুতে রাত্রিযাপনের ব্যবস্থা। কটেজের সামনে যত দূর চোখ যায় চায়ের বাগান আর পেছনে নদী। শুয়ে বসে অসল সময় কাটানো আর চায়ের কাপে চুমুক, এ এক দারুণ অনুভূতি। বন্ধু-বান্ধব কিংবা পরিবার নিয়ে এই বাংলোতে কাটাতে পারেন অবসর সময়।

ডাহুক টি এন্ড টি এস্টেটে যে সুবিধা পাবেনঃ

* নন এসি রুম
* তাবুতে থাকার ব্যবস্থা
* হেমোক
* মাটির চুলায় রান্না করা খাবার
* সুস্বাদু তিন বেলার দেশীয় বিভিন্ন খাবার প্যাকেজ
* ক্যাম্প ফায়ার
* বার বি-কিউ এর ব্যবস্থা
যোগাযোগঃ
ডাহুক টি এষ্টেট এন্ড কটেজ 🌱
বুড়াবুড়ি, তেতুঁলিয়া, পঞ্চগড়।
মোবাইলঃ 01315133899
ফেসবুক পেজঃ লিংক

পঞ্চগড় জেলার দর্শনীয় স্থানঃ মির্জাপুর শাহী মসজিদ, মহারাজার দিঘী, রকস্ মিউজিয়াম, ভিতরগড় দুর্গনগরী, বাংলাবান্ধা জিরো পয়েন্ট, ভিতরগড়, মিরগড়, পঞ্চগড় এর এশিয়ান হাইওয়ে, গোলকধাম মন্দির, মহারাজার দিঘী, বারো আউলিয়ার মাজার (আটোয়ারী)

This slideshow requires JavaScript.

গত কয়েক মাসে এই কটেজে সবচেয়ে বেশি ঘুরতে গিয়েছে মোটরসাইকেলিস্ট কিংবা মটো ট্রাভেলাররা। বিশেষ করে দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে দলবল নিয়ে এসেছে বিভিন্ন বাইকার গ্রুপ। এই কটেজে বাইকররা পায় বিশেষ সমাদর। কারণ এই কটেজের পরিচালক জনাব রাসিক ইরতেশাম নিজেও একজন বাইক প্রেমী এবং সময় পেলে ঘুরে বেড়ায় দেশের নানা প্রান্ত।

সাধারণত আগষ্ট থেকে জানুয়ারী মাসে মানুষ পঞ্চগড়ে বেশি যায় দূর থেকে কাঞ্চনজঙ্ঘা উপভোগের জন্য। কাঞ্চনজঙ্ঘা ভারতের সিকিম ও নেপাল জুড়ে অবস্থিত। এটি পৃথিবীর তৃতীয় উচ্চতম পর্বতশৃঙ্গ। এর উচ্চতা ৮,৫৮৬ মিটার বা ২৪, ১৬৯ ফুট। যদিও এই কাঞ্চনজঙ্ঘা দেখাটা সম্পূর্ণ ভাগ্যের উপর নির্ভরশীল। তবে যে কোন সময়, রাতে দেখা যায় জলপাইগুড়ির পাহাড়ি পথে ছুটে চলা যানবাহনগুলোকে।

Related Posts